শুক্রবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২২, ০৪:৪৪ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ সংবাদ
কোম্পানিকে পুঁজিবাজারে আসতে চিঠি

কোম্পানিকে পুঁজিবাজারে আসতে চিঠি

বরেন্দ্র নিউজ ডেস্কঃ পুঁজিবাজার থেকে মূলধন সংগ্রহ করতে রাষ্ট্রায়ত্ত ১৭ কোম্পানিকে চিঠি দিয়েছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন-বিএসইসি। মূলধন সংগ্রহে কোম্পানিগুলোকে শেয়ার বা বন্ড ইস্যুর পরামর্শ দেয়া হয়েছে।
এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ৯টি কোম্পানি বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতের। অন্যান্য কোম্পানির মধ্যে প্রকৌশল এবং ভ্রমণ খাতের আছে দুটি করে।
বাকি কোম্পানিগুলোর মধ্যে সবচেয়ে পরিচিত দুটি হলো বাংলাদেশ বিমান ও সরকারি ওষুধ কোম্পানি এসেনসিয়াল ড্রাগস।
এ-সংক্রান্ত একটি চিঠি বুধবার কোম্পানিগুলোর কাছে পাঠানো হয়েছে বলে বিএসইসির পক্ষ থেকে নিশ্চিত করা হয়েছে।
এ বিষয়ে বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র রেজাউল করিম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বুধবার এ-সংক্রান্ত একটি চিঠি ১৭টি কোম্পানিকে পাঠানো হয়েছে। মূলত যেসব কোম্পানির আর্থিক অবস্থা ভালো, সেসব কোম্পানিকে চিঠি দেয়া হয়েছে।’
তিনি বলেন, ‘এটি নতুন কিছু নয়। ২০১৯ সালে সে সময়ের অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে কোম্পানিগুলোর বৈঠক হয়েছিল। সেখান থেকেই তাদের তাগাদা দেয়া হচ্ছে, যাতে কোম্পানিগুলো পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়ে মূলধন সংগ্রহ করে এবং সাধারণ বিনিয়োগকারীদের মধ্যে শেয়ার বণ্টনের মাধ্যমে অংশীদারত্ব বাড়ায়।’
চিঠিতে তালিকাভুক্তির সুবিধা উল্লেখ করে বলা হয়েছে, পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্তির মাধ্যমে ইক্যুইটি শেয়ার, বন্ড ইত্যাদিসহ বিভিন্ন উপায়ে মূলধন সংগ্রহ করে ব্যবসা সম্প্রসারণ করার সুযোগ রয়েছে। এতে বাংলাদেশের সাধারণ জনগণের অংশগ্রহণ থাকবে। প্রতিষ্ঠানে সাধারণ জনগণের মালিকানা থাকলে তারাও উপকৃত হবে।
পুঁজিবাজার থেকে সংগৃহীত মূলধন সরকারের ওপর পুনঃবিনিয়োগের বোঝা কমাবে উল্লেখ করে চিঠিতে আরও বলা হয়, ‘এ-সংক্রান্ত বিষয়ে আপনার প্রতিষ্ঠানের প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি ও সার্বিক সহযোগিতা কমিশন সব সময় সেবাদানে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।’
পুঁজিবাজার বিশ্লেষক আবু আহমেদ মনে করেন, সরকারি কোম্পানিগুলোকে বাধ্য করা উচিত। যেসব বহুজাতিক কোম্পানি ব্যবসা করছে তাদেরও পুঁজিবাজারে নিয়ে আসা জরুরি বলে মনে করেন তিনি।
নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘এসব কোম্পানিগুলোকে পুঁজিবাজারে নিয়ে আসতে সরকারও নানা উদ্যোগ নিয়েছে। কিন্তু বাস্তবে কাজ হয়নি। এখন যেহেতু নতুন করে বিএসইসি আবারও উদ্যোগ নিয়েছে, সেহেতু তাদের এখন বাধ্য করে হলেও পুঁজিবাজারে আনা উচিত।’
এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিএসইসির মুখপাত্র রেজাউল করিম বলেন, বহুজাতিক কোম্পানিগুলোকেও চিঠি দেয়া হবে, যেন তারা পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়।

চিঠি দেয়া হয়েছে সেব কোম্পানিকে
যাদের তালিকাভুক্ত হতে বলা হয়েছে, সেগুলোর মধ্যে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতের কোম্পানিই বেশি। এগুলো হলো- বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি, এলফি গ্যাস, গ্যাস ট্রান্সমিশন কোম্পানি-জিটিসিএল, জালালাবাদ গ্যাস টিঅ্যান্ডডি সিস্টেম, সিলেট গ্যাস ফিল্ডস, বাংলাদেশ গ্যাস ফিল্ড কোম্পানি, রূপান্তরিত প্রাকৃতিক গ্যাস কোম্পানি, নর্থ-ওয়েস্ট পাওয়ার জেনারেশন কোম্পানি ও ইলেকট্রিসিটি জেনারেশন কোম্পানি অফ বাংলাদেশ।
প্রকৌশল খাতের কোম্পানির মধ্যে আছে প্রগতি ইন্ডাস্ট্রিজ ও বাংলাদেশ ক্যাবল শিল্প।
ভ্রমণ ও অবকাশ খাতের কোম্পানির মধ্যে আছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স, হোটেলস ইন্টারন্যাশনাল।
টেলিযোগাযোগ খাতে বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন কোম্পানিকেও দেয়া হয়েছে চিঠি।
অন্য দুই কোম্পানি হলো কাগজ ও প্রকাশনা খাতের কর্ণফুলী পেপার মিলস, ওষুধ ও রসায়ন খাতের এসেনসিয়াল ড্রাগস কোম্পানি এবং সিরামিক খাতের বাংলাদেশ ইন্স্যুলেটর অ্যান্ড সেনেটারিওয়্যার ফ্যাক্টরি।
আর্থিক অবস্থা
বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির ২০২০-২১ অর্থবছরে আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী মোট আয় করেছে ২ হাজার ৫৮৯ কোটি ৪৬ লাখ ৩০ হাাজর ৯৭৯ টাকা। আগের বছরের একই সময়ে আয় হয়েছিল ২ হাজার ৬৩৪ কোটি ৫১ লাখ ৬৬ হাজার ২৫ টাকা।
এই সময়ে বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির কর-পরবর্তী মুনাফা হয়েছে ১৪৮ কোটি ৭১ লাখ ৪ হাজার ৮৯৯ টাকা। আগের বছরের একই সময়ে কর-পরবর্তী আয় হয়েছিল ৯৭ কোটি ৪৯ লাখ ৩৫ টাকা।
এলপি গ্যাস লিমিটেড তথ্যে দেখা গেছে, উত্তর পতেঙ্গা চট্টগ্রাম এবং সিলেটের গোলাপগঞ্জ কৈলাশটিলার এলপিজি বটলিং প্ল্যান্ট দুটিতে উৎপাদিত এলপিজি পাইপলাইনের মাধ্যমে সংগ্রহ করে বোতলজাত করা হয়।
বোতলজাত এলপিজি বিপিসির নিয়ন্ত্রণে পরিচালিত বিপণন কোম্পানির মাধ্যমে বাজারজাত করার লক্ষ্যে পদ্মা, মেঘনা, যমুনা ও এসএওসিএলকে বিপিসির নির্দেশিত হারে সরবরাহ করা হয়।
এক শিফটে এলপি গ্যাস লিমিটেডের চট্টগ্রাম কারখানার উৎপাদন ক্ষমতা বার্ষিক ১০ হাজার মেট্রিক টন এবং কৈলাশটিলা কারখানার উৎপাদন ক্ষমতা বার্ষিক সাড়ে পাঁচ হাজার মেট্রিক টন ।
জালালাবাদ গ্যাস টিঅ্যান্ডডি সিস্টেম লিমিটেডের আর্থিক প্রতিবেদনে দেখা গেছে, ২০২০-২১ অর্থবছরে কোম্পানিটি ডিএসএল বাবদ ৬ কোটি ১৬ লাখ টাকা, লভ্যাংশ বাবদ ৭০ কোটি ৭৫ লাখ টাকা, আয়কর বাবদ ৭৮ কোটি ৯৬ লাখ টাকা, আমদানি শুল্ক বাবদ ১১ কোটি ১ লাখ টাকাসহ ১৬৬ কোটি ৮৮ লাখ টাকা সরকারি কোষাগারে জমা দিয়েছে।
রূপান্তরিত প্রাকৃতিক গ্যাস কোম্পানির এলএনজি ডিভিশনের আওতায় এলএনজি সংক্রান্ত টার্মিনাল ডেভেলপমেন্ট, এলএনজি আমদানি, রিগ্যাসিফাই ও জাতীয় গ্রিডে আরএলএনজি সরবরাহ কার্যক্রম পরিচালনা করছে।
দেশের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা-২০৩০ এবং রূপকল্প ২০২১ ও ২০৪১ অর্জনে সরকারি সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে পেট্রোবাংলার তত্ত্বাবধানে আরপিজিসিএল কর্তৃক যথাযথ কার্যক্রমের মাধ্যমে দেশে এলএনজি টার্মিনাল (ভাসমান ও স্থলভিত্তিক) স্থাপনসহ এলএনজি সংক্রান্ত কার্যাবলি বাস্তবায়নের পদক্ষেপ নিয়েছে।
এ কোম্পানির আওতায় কক্সবাজারে মহেশখালীতে ৫০০ এমএমএসসিএফ ভাসমান এলএনজি টার্মিনালের মাধ্যমে ২০১৮ সাল থেকে বাণিজ্যিকভাবে জাতীয় গ্যাস গ্রিডে রিগ্যাসসিফাইড এলএনজি সরবরাহ শুরু করেছে।

স্যোসাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন




২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | বরেন্দ্র সমাচার.কম
ডিজাইন ও তৈরী করেছেন- হাবিবুর রহমান নীল