বুধবার, ২৫ মে ২০২২, ০৯:৪১ অপরাহ্ন

সর্বশেষ সংবাদ
বড় অঙ্কের বিদেশি বিনিয়োগের টার্গেট

বড় অঙ্কের বিদেশি বিনিয়োগের টার্গেট

বরেন্দ্র নিউজ ডেস্কঃ করোনা মহামারিতে সারা বিশ্ব বিপর্যস্ত। এতে বিদেশি বিনিয়োগ অনেকটা স্থবির হয়ে পড়ে। বিশ্বের মতো টালমাটাল হয়ে পড়ে দেশের অর্থনীতি। দীর্ঘদিন পর বিশ্বব্যাপী করোনা নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। আর তাই বিপর্যস্ত অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে এবং এসব বিদেশি বিনিয়োগ টানতে চেষ্টা করেছে বাংলাদেশ। ইতোমধ্যে দেশের পুঁজিবাজারে বিদেশি ও নন-রেসিডেন্স বাংলাদেশিদের (এনআরবি) বিনিয়োগ বাড়াতে উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। বিএসইসি যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, সুইজারল্যান্ড এবং দুবাইতে রোড শো’র মাধ্যমে বাংলাদেশকে তুলে ধরেছে। চলতি মাসেই যুক্তরাজ্যে অনুষ্ঠিত রোড শোতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উপস্থিত ছিলেন।
এদিকে বিদেশি বিনিয়োগ পুনরুদ্ধারের চেষ্টা হিসেবে গত বছরের শেষভাগে চীন থেকে সরিয়ে নিয়ে আসা জাপানী দুটি কারখানার গন্তব্যস্থল হয়েছে বাংলাদেশ। যদিও চীন থেকে সরে আসা বেশিরভাগ বিনিয়োগ চলে যায় ভিয়েতনাম, তাইওয়ান, থাইল্যান্ড, মেক্সিকো ও ভারতে। এই বাস্তবতায় বিশ্বের অন্যতম লাভজনক বিনিয়োগ গন্তব্য হিসেবে বাংলাদেশকে তুলে ধরতে বড় পরিসরে আন্তর্জাতিক বিনিয়োগ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়েছে। রাজধানীর রেডিসন হোটেলে আজ রোববার ও কাল সোমবার দু’দিনব্যাপী হবে এই সম্মেলন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্মেলনের উদ্বোধন করবেন। এতে দুই হাজারেরও বেশি বিনিয়োগকারী ও ২৫টি দেশ অংশ নেয়ার কথা রয়েছে। ২০২৬ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে ৫০০ বিলিয়ন ডলার অর্থনীতির দেশ হিসেবে গড়ে তুলতে প্রয়োজনীয় বিদেশি বিনিয়োগ আনা এ সম্মেলনের প্রধান উদ্দেশ্য বলে জানিয়েছেন আয়োজক বিডা। গতকাল রাজধানীর আগারগাঁওয়ে এ নিয়ে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে বিডা। এতে সম্মেলনের বিভিন্ন বিষয় তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান।

বিডা সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের আয়োজনে এই সম্মেলনের সহযোগী হিসেবে থাকছে আইএফসি। এর আগে বাংলাদেশে সর্বশেষ বিনিয়োগ সম্মেলন হয়েছিল ২০১৬ সালের জানুয়ারিতে তখনকার বাংলাদেশ বিনিয়োগ বোর্ডের অধীনে। ওই বছরই বিনিয়োগ বোর্ড ও বেসরকারীকরণ কমিশনকে একীভ‚ত করে গঠিত হয় বিডা। বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ গঠিত হওয়ার পর এই প্রথম দেশের মাটিতে এ ধরনের আন্তর্জাতিক সম্মেলন হতে যাচ্ছে। ২০২০ সালে এ সামিট হওয়ার কথা থাকলেও করোনা মহামারির কারণে তা পিছিয়ে যায়। এবারের আয়োজনের প্রতিপাদ্য, ‘বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা, যেখানে রয়েছে অসীম বিনিয়োগের সম্ভাবনা’। বিশ্বব্যাংকের সহযোগী সংস্থা ইন্টারন্যাশনাল ফাইন্যান্স কর্পোরেশনের (আইএফসি) এশিয়া ও প্যাসিফিক অঞ্চলের ভাইস প্রেসিডেন্ট আলফনসো গার্সিয়া মোরা এবং ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের (ডবিøউইএফ) ব্যবস্থাপনা পরিচালক জেরেমি জারগেনস উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখবেন।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ তথ্যে দেখা যায়, চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) ৮৪ কোটি ৭০ লাখ ডলারের সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগ (এফডিআই) এসেছে বাংলাদেশে, যা গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ৯ শতাংশ বেশি। ২০২০-২১ অর্থবছরের এই তিন মাসে ৭৭ কোটি ৭০ লাখ ডলারের এফডিআই পেয়েছিল বাংলাদেশ। জুলাই-সেপ্টেম্বর সময়ে নিট এফডিআই বেড়েছে আরও বেশি, প্রায় ৫০ শতাংশ। এই তিন মাসে নিট এফডিআইয়ের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৩৪ কোটি ডলার। গত বছরের এই তিন মাসে নিট বিনিয়োগের অঙ্ক ছিল ২২ কোটি ৭০ লাখ ডলার। মহামারি করোনার মধ্যেও গত ২০২০-২১ অর্থবছরে ৩৩৮ কোটি ৬৮ লাখ ৬০ হাজার ডলারের (৩ দশমিক ৩৮ বিলিয়ন) এফডিআই এসেছিল বাংলাদেশে। ওই অঙ্ক ছিল আগের অর্থবছরের চেয়ে ৪ দশমিক ৮ শতাংশ বেশি। নিট এফডিআইয়ের পরিমাণ ছিল ২৫০ কোটি ৭৩ লাখ (২ দশমিক ৫০ বিলিয়ন) ডলার, প্রবৃদ্ধি হয়েছিল ৫ দশমিক ৮ শতাংশ। ২০১৯-২০ অর্থবছরে ৩২৩ কোটি ৩০ লাখ (৩ দশমিক ২৩ বিলিয়ন) ডলারের বিদেশি বিনিয়োগ পেয়েছিল বাংলাদেশ। নিট বিনিয়োগের অঙ্ক ছিল ১২৭ কোটি ১০ লাখ ডলার। তার আগে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে প্রায় ৫ বিলিয়ন (৫০০ কোটি) ডলার বিদেশি বিনিয়োগ এসেছিল দেশে। এর মধ্যে নিট এফডিআইয়ের পরিমাণ ছিল ২৬৩ কোটি ডলার। বাংলাদেশের ইতিহাসে এক অর্থবছরে সবচেয়ে বেশি বিদেশি বিনিয়োগ আসে ওই বছর। এর মধ্যে বড় অঙ্কের বিনিয়োগ করে জাপানের কোম্পানি জাপান টোব্যাকো। আকিজ গ্রæপের তামাক ব্যবসা কেনা বাবদ প্রায় ১৫০ কোটি (১ দশমিক ৫ বিলিয়ন) ডলার বিনিয়োগ করেছিল তারা। বিভিন্ন খাতে মোট যে সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগ আসে, তা থেকে বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান মুনাফার অর্থ দেশে নিয়ে যাওয়ার পর অবশিষ্ট অঙ্ককে নিট এফডিআই বলা হয়। জাপানের বিনিয়োগ ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান নমুরা হোল্ডিংসের এক জরিপে দেখা যায়, চীনে নিবন্ধিত ৬৯০টি জাপানী কোম্পানির মধ্যে ২০১৮ থেকে ২০২০ সালের তৃতীয় প্রান্তিক পর্যন্ত ৭৯টি কোম্পানি চীন থেকে কারখানা সরিয়ে নিয়েছে। এর মধ্যে ২৬টি ভিয়েতনামে, ১১টি তাইওয়ানে, ৮টি থাইল্যান্ডে, ৬টি মেক্সিকোতে ও ৩টি ভারতে গেছে। বাংলাদেশ পেয়েছে দুটি।

জানা গেছে, নতুন ভিত্তি বছর (২০১৫-১৬) অনুযায়ী, চলতি মূল্যে বাংলাদেশের অর্থনীতির আকার (জিডিপি) এখন ৪১১ বিলিয়ন ডলার। পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান সম্প্রতি বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) নতুন হিসাব তুলে ধরে জানিয়েছেন, বাংলাদেশের অর্থনীতির আকার ৪১১ বিলিয়ন ডলার। বর্তমান বিনিময় হার হিসাবে (প্রতি ডলার ৮৫ টাকা ৮০ পয়সা) টাকার অঙ্কে এই অর্থের পরিমাণ ৩৫ লাখ ২৬ হাজার ৩৮০ কোটি টাকা। সে হিসেবে ৫০০ বিলিয়ন ডলারের অর্থনীতির বাংলাদেশ হলে টাকার অঙ্কে এর পরিমাণ হবে প্রায় ৪৩ লাখ কোটি টাকা। তবে বর্তমানে বিদেশি বিনিয়োগে বেশ কিছু বাধা রয়েছে বলে মনে করেন অর্থনীতিবিদরা।

অর্থনীতির গবেষক পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর বলেন, দেশি বিনিয়োগ না বাড়লে বিদেশি বিনিয়োগও বাড়বে না। গত কয়েক বছর ধরে আমাদের বিনিয়োগ একই জায়গায় আটকে আছে, জিডিপির ৩১ থেকে ৩২ শতাংশের মধ্যে। করোনার কারণে তা আরও কমে গেছে। তিনি বলেন, করোনায় বিশ্ব বাণিজ্য স্থবির হয়ে পড়ায় পুঁজির চলাচল একেবারে স্থবির ছিল। ফলে বিশ্বব্যাপী নতুন পুঁজি বিনিয়োগ কম হয়েছে। এর মধ্যেও যে গত অর্থবছরে বাংলাদেশে এফডিআই ৮ শতাংশের বেশি প্রবৃদ্ধি হয়েছে, এটাকে ভালোই বলা যায়।
প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি খাত ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান বলেছেন, বিদেশি বিনিয়োগ আকৃষ্ট করার জন্য আমরা অনেক ইনসেনটিভ দিয়েছি। বিডা একগুচ্ছ সুযোগ সুবিধা দিয়েছে বিদেশি কোম্পানিগুলোকে। বন্দর, সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন করা হয়েছে। গ্যাস, বিদ্যুতসহ ইউটিলিটির ব্যাপক উন্নতি করা হয়েছে। এই বাস্তবতায় বিশ্বের অন্যতম লাভজনক বিনিয়োগ গন্তব্য হিসেবে বাংলাদেশকে তুলে ধরতে বড় পরিসরে আন্তর্জাতিক বিনিয়োগ সম্মেলন আয়োজন করা হচ্ছে।
সালমান এফ রহমান বলেন, আমরা দুটি মূল উদ্দেশ্য সামনে রেখে আন্তর্জাতিক বিনিয়োগ সম্মেলন করছি। একটি হলো বাংলাদেশ সম্পর্কে জানানো। দ্বিতীয়টি হলো বাংলাদেশে যে বিনিয়োগের সুযোগ ও পরিবেশ রয়েছে সেটি এবং বিনিয়োগকারীদের আমরা কী কী সুবিধা দিই, এ বিষয়গুলো আমরা তুলে ধরতে চাই। যাতে এর মাধ্যমে আমরা বিনিয়োগ আকর্ষণ করতে পারি। প্রধানমন্ত্রী আমাদের একটি লক্ষ্য ঠিক করে দিয়েছেন ২০৪১ সালের মধ্যে আমরা উন্নত দেশে পরিণত হতে চাই। এজন্য বিনিয়োগের বিকল্প নেই। উন্নত দেশে পরিণত হতে হলে আমাদের মাথাপিছু আয় ১২ হাজার ডলারের বেশি হতে হবে। এখন আমরা আড়াই হাজার ডলারের ওপরে আছি। এটাকে ১২ হাজার ডলারের বেশিতে নিতে হবে। বর্তমানে আমাদের বিনিয়োগ অনুপাতে জিডিপির যে পরিমাণ আছে, তা আরো ৭০ শতাংশ বাড়াতে হবে। এ পরিসংখ্যানই বলে দিচ্ছে, আমাদের কত বেশি বিনিয়োগ প্রয়োজন। তাই আসন্ন ইনভেস্টমেন্ট সামিট আমাদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সার্বিক বিবেচনায়ও বিনিয়োগ সম্মেলনের তাৎপর্য অনেক।

সালমান এফ রহমান বলেন, কিছুদিন আগে আমরা যুক্তরাষ্ট্রে রোড শো করেছি, দুবাইয়ে করেছি, সুইজারল্যান্ডে করেছি এবং স¤প্রতি লন্ডনের রোড শোতে প্রধানমন্ত্রী নিজে উপস্থিত ছিলেন। ফ্রান্সেও ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলেছি। আমি নিজেও উজবেকিস্তানে গিয়েছি। সব কথার এক কথা, বাংলাদেশ যে এখন একটা নতুন বাংলাদেশ হয়ে গড়ে উঠেছে, এটা সবাইকে জানাতে হবে। ইনভেস্টমেন্ট সামিটও তারই অংশ। এ সামিটে আমরা শুধু যে বিদেশি বিনিয়োগ আনব তা নয়, দেশীয় বিনিয়োগও আমাদের প্রয়োজন। এ দুই শ্রেণিই আমাদের টার্গেট।
সালমান এফ রহমান সম্মেলনের প্রত্যাশা সম্পর্কে বলেছেন, প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে নতুন যে বাংলাদেশ তৈরি করতে পেরেছি, এ নতুন বাংলাদেশে যে বিনিয়োগের অনুকূল পরিবেশ আছে, এ সম্পর্কে যত বেশি সম্ভব প্রচারণা করা এবং সর্বোচ্চসংখ্যক মানুষকে যেন এ বিষয়গুলো জানাতে পারি, সেটাই উদ্দেশ্য।
সূত্র মতে, সম্মেলনে কয়েকটি প্ল্যানারি সেশনের পাশাপাশি খাতভিত্তিক কারিগরি অধিবেশন হবে। সেখানে বাংলাদেশে বিনিয়োগ প্রতিযোগিতা এবং ব্যবসায়িক পরিবেশ, বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল, তথ্যপ্রযুক্তি, তৈরি পোশাক, ইলেকট্রনিকস এ্যান্ড ইলেকট্রিক শিল্প, কৃষি, চামড়া, ওষুধশিল্প, স্বাস্থ্য, পুঁজিবাজার, পরিবহনসহ ১৪টি খাত নিয়ে আলোচনা হবে। প্রতিটি সেশনে একজন বিশেষজ্ঞ মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন। এর ওপর দেশি-বিদেশি প্রতিনিধিরা আলোচনা করবেন। সংশ্লিষ্ট খাতের মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী এবং উপদেষ্টারা বক্তব্য রাখবেন। যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, সিঙ্গাপুর, হংকং, চীন, নেদারল্যান্ডস, সউদী আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত (ইউএই), ভারত, তুরস্ক, থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়াসহ প্রায় ২৫টি দেশের সরকারি প্রতিনিধি ও বিনিয়োগকারীরা অংশ নেবেন এই সম্মেলনে। পাশাপাশি আন্তর্জাতিক ঋণদাতা সংস্থা বিশ্বব্যাংক, এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি), এশীয় অবকাঠামো বিনিয়োগ ব্যাংকসহ (এআইআইবি) বৈশ্বিক অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা অংশ নেবেন।
আয়োজকরা জানান, স্থানীয় নীতিনির্ধারক, অর্থনীতিবিদ ও বেসরকারি খাতের প্রতিনিধিরাও এতে যোগ দেবেন। আজ রোববার সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত উদ্বোধনী অনুষ্ঠান হবে। এই অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান বক্তব্য রাখবেন। যদিও সম্মেলনের দ্বিতীয় দিনে পুঁজিবাজার নিয়ে আলোচনায় পুঁজিবাজারে বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, সুইজারল্যান্ড এবং দুবাইতে রোড শো’ করা বিএসইসি চেয়ারম্যন প্রফেসর শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলামকেই রাখা হয়নি। বিডা’র এ ধরনের সিদ্ধান্ত নিয়ে সর্বমহলে প্রশ্ন উঠেছে।

স্যোসাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন




২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | বরেন্দ্র সমাচার.কম
ডিজাইন ও তৈরী করেছেন- হাবিবুর রহমান নীল