বুধবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২০, ১২:১২ অপরাহ্ন

বাংলাদেশের অগ্রগতি ষড়যন্ত্রকারী গোষ্ঠীর পছন্দ হয় না:প্রধানমন্ত্রী

বাংলাদেশের অগ্রগতি ষড়যন্ত্রকারী গোষ্ঠীর পছন্দ হয় না:প্রধানমন্ত্রী

বরেন্দ্র নিউজ ডেস্কঃ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, যারা বাংলাদেশের স্বাধীনতা চায়নি, দেশ সামনে এগিয়ে গেলে তাদের খুব কষ্ট হয়। বাংলাদেশের অগ্রগতি ষড়যন্ত্রকারী গোষ্ঠীর পছন্দ হয় না।
গতকাল সকালে মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকের শুরুতে গণভবন থেকে অনলাইনে সংযুক্ত হয়ে তিনি এসব কথা বলেন।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, দেশের সুন্দর পরিবেশ নষ্ট করে সংঘাত সৃষ্টির পাঁয়তারা করছে একটি মহল। বাংলাদেশের কোনো অগ্রগতি সে গোষ্ঠীর পছন্দ হয় না। দেশ নিয়ে, সমাজ নিয়ে যখন ষড়যন্ত্র সফল হয় না, তখনই দেশের একটি শ্রেণি সমালোচনামুখর হয়। একটা ভালো পরিবেশ নষ্ট করার জন্য, সংঘাত সৃষ্টির জন্য তারা বক্তব্য দেবে। আর তাদের ধরা হলে সেটাকে বলা হবে বাকস্বাধীনতা হরণ করা, এটা তো হয় না। সংঘাতে উসকানিদাতাদের গ্রেফতার করলে তারাই আবার সরকারের বিরুদ্ধে বাকস্বাধীনতা হরণের অভিযোগ করে। কিন্তু এভাবে দেশ চলতে পারে না। প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশ ভালো অবস্থানে যাবে, অর্থনীতিতে গতি আসবে; এটা ওই গোষ্ঠীর পছন্দ হয় না। তারা চায় বাংলাদেশ ভিক্ষুক হয়ে থাকবে। অন্যের কাছে হাত পেতে চলবে। যখনই সে অবস্থার পরিবর্তন হতে শুরু করেছে, দেশবিরোধী ওই গোষ্ঠীর গায়ে জ্বালা ধরে গেছে। আর তারা উসকানিমূলক বক্তব্য দিতে শুরু করেছে।

এ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, উপযুক্ত তথ্য না দিয়ে প্রতিরক্ষামূলক অবস্থান গ্রহণের মানসিকতা ভালো অভ্যাস নয়। শিক্ষার্থীদের কোটাবিরোধী আন্দোলনের সময় গুজবের একটি ঘটনার বিষয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের ধানমন্ডি কার্যালয়ে একটি মেয়েকে নির্যাতন করা হচ্ছে- এমন গুজব ছড়িয়ে পড়ার পর সাধারণ শিক্ষার্থীরা আন্দোলন করেছিল। একদল ষড়যন্ত্রকারীর ছড়িয়ে দেওয়া গুজবের কারণে সেদিন পাথর ও প্রাণঘাতী অস্ত্র নিয়ে দলীয় কার্যালয়ে হামলার মতো ঘটনাও ঘটেছিল।
শেখ হাসিনা বলেন, যারা আমাদের স্বাধীনতাই চায়নি, তাদের তো আরও কষ্ট হয় এটা তো আমরা বুঝি। সামনে এগোতে গেলেই তখন এই শ্রেণির মানুষদের খুব কষ্ট হয়। কিন্তু আমরা দেশ স্বাধীন করেছি। নিজের পায়ে দাঁড়াব। তবে তাদের যত কষ্টই হোক, দেশকে স্বনির্ভর করার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করব। প্রধানমন্ত্রী বলেন, একটা শ্রেণি তো আছেই, যাদের চিন্তাটাই হলো এ ধরনের। অর্থাৎ সমাজকে ক্ষতিগ্রস্ত করা বা সরকারের ক্ষতি করা। মানুষের জীবন নিয়ে তাদের কোনো চিন্তাই নেই। তাদের অন্য একটা উদ্দেশ্য থাকে। তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশ এখন একটি ভালো জায়গায় আছে, আরও ভালো জায়গায় যাবে। বাংলাদেশের অর্থনীতি এখন ভালো।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আমরা ভিক্ষুক হয়ে থাকব, অন্যের মুখাপেক্ষী হয়ে থাকব, তাদের কাছে হাত পাতব, তাদের কাছে চেয়ে খাব, তাদের কাছে চাইব, এটাই তো তারা চাইবে। কিন্তু আমরা তো তা থাকব না। আমরা দেশ স্বাধীন করেছি।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | বরেন্দ্র সমাচার.কম
ডিজাইন ও তৈরী করেছেন- হাবিবুর রহমান নীল